আওয়ামী লীগ সরকার বিএনপিকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে: বিএনপি

0 ৪১

কোনও সাময়িক সমঝোতার ভিত্তিতে বিএনপির পক্ষ থেকে কেউ যেন ‘মধ্যবর্তী নির্বাচনের টোপ’ না গিলে, সেজন্য দলের নীতিনির্ধারণী ফোরামের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও যুবদলের সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল। 

তিনি বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ হচ্ছে এমন একটি রাজনৈতিক দল, কোনও প্রকার তাদের মিথ্যা বাণী বা আশায় আশান্বিত হয়ে কোনও প্রকার মধ্যবর্তী নির্বাচনের টোপ আমাদের মাঝে কেউ গ্রহণ করতে যেন না পারে সেই বিষয়ে আমাদের সজাগ ও সচেষ্ট থাকতে হবে।’ 

গতকাল মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) নয়াপল্টনস্থ বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচতলায় তারেক রহমানের ৫৬তম জন্মদিন উপলক্ষে তার সুস্বাস্থ্য, সাফল্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ মন্তব্য করেন। মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে মহানগর দক্ষিণ শ্রমিক দল।

মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ‘বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান শুধু বিএনপির-আশা ভরসা নয়। তিনি সমগ্র বাংলাদেশের জনগণের আশা-ভরসা। যেমনটি ছিলেন শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান। যেমন দেশবাসীর আশা-ভরসা হয়ে আছেন বেগম খালেদা জিয়া। ঠিক তেমনই তারেক রহমানের ওপর এদেশের জনগণের আশা ভরসা ও ভালোবাসা রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আইন করা হয়েছিল জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বলা যাবে না। কিন্তু দেশের জনগণ তারপরও তাঁকে স্বাধীনতার ঘোষক বলে। আরেকটি আইন করা হয়েছে যে, তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচার-প্রকাশ করা যাবে না। কিন্তু টেলিভিশনের টকশো থেকে শুরু করে সব জায়গায় তার কথা বলে যাচ্ছে। আইন করা হয়েছিল দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কোনও কথা বলতে পারবেন না। তাঁর তো বলার কোনও প্রয়োজনও নেই। হাজারো অনুসারী তাঁর হয়ে কথা বলছে। রাস্তাঘাটে মসজিদে সব জায়গায় কথা বলা হচ্ছে। এসব কে ঠকাচ্ছে?’

সরকার বিএনপিকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছে মন্তব্য করে যুবদলের সাবেক এ সভাপতি বলেন, ‘শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান জনগণের অন্তরে আছে ভালোবাসায় আছে। আর সরকার বিএনপিকে নিয়ে আছে দুশ্চিন্তায়।’

তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ জন্মের পর থেকে আজ অব্দি নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের বিষয়ে বিপরীতমুখী অবস্থান নিয়েছে। ১৯৭৩ সনে আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় তখন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সকল ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয়েছিল। এর আগে পাকিস্তান বা বাংলাদেশের মানুষ দেখেনি কলেজ বা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ব্যালট বাক্স ছিনতাই হয়। আওয়ামী লীগের লোকেরা তাই করেছে।’

আলাল বলেন, ‘আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা আবুল মনসুর আহমেদ দুঃখ করে তার বইয়ের মধ্যে লিখেছেন, আমরা এত করে বোঝালাম মুজিব ভাই কাজটা ঠিক হচ্ছে না, আপনি এত জনপ্রিয়, আওয়ামী লীগ এত জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল, সম্পূর্ণ নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে আপনি ক্ষমতায় থাকবেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকবে। তারপরও জোর করে সারা বাংলাদেশে ব্যালট বাক্স ছিনতাই করে, ঢাকা থেকে হেলিকপ্টার পাঠিয়ে ঢাকায় ভোট ভর্তি ব্যালট বাক্স এনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের বিজয়ী ঘোষণা করা হলো। মাত্র ৭ টি আসন দেয়া হল বিরোধীদলকে। তিনি সেদিন লিখেছিলেন, ১৯৭৩ সালে যেখানে অন্য কোনও দলের ক্ষমতায় আসার কোনও আভাস ছিল না। তারপরও ছোট্ট বিরোধীদলকে আওয়ামী লীগ সহ্য করতে পারেনি। এটা কোনও সামরিক উত্তেজনা নয়, এটা তাদের সুদূরপ্রসারী একটি পরিকল্পনার অংশ।’

বিএন‌পির এই নেতা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের এসব অপকর্ম ও গণতন্ত্রবিরোধী অবস্থানের কারণে আওয়ামী লীগের মত একটি রাজনৈতিক দলের চাইতে জিয়াউর রহমান, বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের তিন প্রজন্মের ৪২ বছরের রাজনৈতিক দল আজকে অনেক বেশি জনপ্রিয়তায় অবস্থান করছে।’

মধ্যবর্তী নির্বাচন প্রসঙ্গে বিএনপির নীতিনির্ধারণী ফোরামের প্রতি এই আহ্বান জানিয়ে মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, ‘একটি কথা মনে রাখতে হবে, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থেকে অথবা প্রশাসন বা নির্বাচন কমিশন এমন অবস্থায় আছে যেখানে আওয়ামী লীগ প্রভাব বিস্তার করতে পারে এমন পরিবেশে কোনও জাতীয় নিবাচনে অংশগ্রহণ করা ঠিক হবে না। কারণ আওয়ামী লীগের জন্মের সাথে এ ইতিহাস যায় না। আর তারা কেনও এটা করতে যাবেন। এই সৎ সাহস বেগম খালেদা জিয়ার আছে। তিনি ১৯৯১ সালে এক অধিবেশনে তত্বাবধায়ক সরকার আইন পাস করে নিজেই ক্ষমতা ছেড়ে দিয়েছেন। এটা বেগম জিয়ার পক্ষে সম্ভব, তারেক রহমানের পক্ষে সম্ভব, কিন্তু আওয়ামী লীগের পক্ষে সম্ভব না। কারণ তাদের নেতৃত্বের ধাপ এখানেই শেষ।’

এ প্রসঙ্গে আলাল বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পর তাদের দলের নেতৃত্বে কে সেটা তারাও জানেন না আর দেশের জনগণও জানে না। কিন্তু আমরা জানি, বেগম খালেদা জিয়ার পর কে। এই যে পার্থক্য এটাকে নানা প্রতারণার মধ্য দিয়ে একটা জায়গায় নিয়ে যাওয়ার কিছু অপেচেষ্টা চলছে। তার আভাস আমরা পাচ্ছি।’

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শ্রমিকদলের সভাপতি কাজী মো. আমির খসরুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম বাদল এর সঞ্চালনায় দোয়া মাহফিলে আরও বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, সাংগঠনিক সম্পাদক ও দফতরের চলতি দায়িত্বে থাকা সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, শ্রমিকদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসাইন ও দক্ষিণ শ্রমিক দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি সুমন ভূঁইয়া প্রমুখ।

তুমি এটাও পছন্দ করতে পারো

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com