পুঁজিবাজারে কালো টাকা বিনিয়োগে শর্ত তুলে নেয়ার আহ্বান

Published: মঙ্গলবার, জুন ১৬, ২০২০ ৭:৫৭ অপরাহ্ণ   |   Modified: মঙ্গলবার, জুন ১৬, ২০২০ ৭:৫৮ অপরাহ্ণ
 

ডিএল টিভি ডট কম

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত বা কালো টাকা বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বেঁধে দেয়া শর্ত তুলে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালক মো. রকিবুর রহমান। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে তিনি এ আহ্বান জানান।

গত ১১ মে জাতীয় সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট উপস্থাপন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এ প্রস্তাবিত বাজেটে শর্তসাপেক্ষে কালো টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ দেয়া হয়।

পুঁজিবাজারে কলো টাকা বিনিয়োগের সুযোগ দেয়ার বিষয়ে প্রস্তাবিত বাজেটে বলা হয়, অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের অন্যতম চালিকাশক্তি পুঁজিবাজারকে গতিশীল করার লক্ষ্যে তিন বছর লক-ইনসহ কতিপয় শর্তসাপেক্ষে আগামী ১ জুলাই থেকে ২০২১ সালের ৩০ জুনের মধ্যে ব্যক্তিশ্রেণির করদাতারা পুঁজিবাজারে অর্থ বিনিয়োগ করলে এবং এই বিনিয়োগের ওপর ১০ শতাংশ কর প্রদান করলে আয়কর কর্তৃপক্ষসহ অন্য কোনো কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে কোনো প্রশ্ন উত্থাপন করতে পারবে।

এ বিষয়ে রকিবুর রহমান বলেন, পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত কালো টাকা সাদা করে বিনিয়োগের যে শর্ত দিয়েছে তার ফলে আমার পূর্বঅভিজ্ঞতা থেকে দৃঢ় বিশ্বাস যে, এখানে এই শর্তের অধীনে কেউ বিনিয়োগ করবে না। যেখানে অন্যান্য সেক্টরগুলোতে অপ্রদর্শিত কালো টাকা সাদা করার অত্যন্ত সহজ শর্তে সুবিধা দিয়েছে তাতে করে পুঁজিবাজারে এই টাকা আসার কোনো সম্ভাবনা নেই।

‘যেমন – ফিক্সড ডিপোজিট, সঞ্চয়পত্র, ব্যাংকে টাকা থাকলে অথবা বন্ড, মিউচুয়াল ফান্ড যেখানেই অপ্রদর্শিত কালো টাকা, যা ট্যাক্স ফাইলে দেখানো হয়নি, সেখানে মাত্র ১০ শতাংশ ট্যাক্স দিয়ে পুরো টাকাটা সাদা করার সুযোগ দিয়েছেন। সেখানে পুঁজিবাজারের মতো একটি নির্দিষ্ট বিনিয়োগ ধরে রাখতে হবে এই ধরনের কোনো শর্ত নেই।’

তিনি বলেন, বাজেটে অর্থমন্ত্রী পুঁজিবাজারে কালো টাকা সাদা করার জন্য ৩ বছরের বিনিয়োগ ধরে রাখার শর্ত দিয়েছেন। ইতোপূর্বে ১৯৯৭-৯৮ এবং ২০১০-১১ অর্থবছরে পুঁজিবাজারে অপ্রদর্শিত কালো টাকা বিনিয়োগে সুযোগ দেয়া হয়েছিল। সেখানে দুই বছর বিনিয়োগে থাকতে হবে এই ধরনের বাধ্যবাধকতা ছিল। সেটা সফল হয়নি এবং কেউ সেই বিনিয়োগে আসেনি, কোথাও কোনো শর্ত দিয়ে কাউকে বিনিয়োগে আনা যাবে না।

ডিএসইর এই পরিচালক বলেন, আমাদের বাস্তবতার সাথে থাকতে হবে। আমি অর্থমন্ত্রীকে বিনীত অনুরোধ করব, এই অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের সময়ে, করোনাভাইরাসের কারণে অপ্রদর্শিত কালো টাকা সাদা করে অর্থনীতির মূলধারায় নিয়ে আসার জন্য আপনি সহজশর্তে কালো টাকার মালিকদের যে সুযোগ করে দিয়েছেন সেটা একটা সময়োপোযোগী এবং যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত।

‘আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, যাদের কাছে অপ্রদর্শিত কালো টাকা বছরের পর বছর আছে , যারা ট্যাক্স ফাইলে দেখাবার সুযোগ পাননি, এই সহজশর্তে তারা তাদের ট্যাক্স ফাইলে অপ্রদর্শিত টাকাকে সাদা করে অর্থনীতির মূল ধারাতে আসার সুযোগটা নেবেন।’

তিনি আরও বলেন, অর্থমন্ত্রীকে বিনীত অনুরোধ করব, পুঁজিবাজারে যে তারল্য সংকট চলছে তার একমাত্র সমাধান হলো- অপ্রদর্শিত কালো টাকা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের সুযোগ করে দেয়া, যাতে কোনো শর্ত থাকবে না। তাতে করে যারা অপ্রদর্শিত এ কালো টাকা সাদা করবেন, তারা তাদের প্ল্যানিং মতো বিনিয়োগ করবেন। এই সুযোগ যখন থাকবে তখন দেখবেন এই অপ্রদর্শিত কালো টাকা যা সহজভাবে সাদা হয়েছে তা অর্থনীতির মূলধারায় এবং পুঁজিবাজারে তারল্য সংকট দূর করে শক্তিশালী করতে একটি ভালো ভূমিকা রাখবে।

 
WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com