মিডিয়াকে সম্রাটের স্ত্রী যা বললেন

Published: সোমবার, অক্টোবর ৭, ২০১৯ ৮:৫৯ পূর্বাহ্ণ   |   Modified: সোমবার, অক্টোবর ৭, ২০১৯ ৮:৫৯ পূর্বাহ্ণ
 

ডিএল টিভি ডট কম

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট ক্যাসিনো চালিয়ে যে টাকা পেতেন তা দলের পেছনেই খরচ করতেন বলে দাবি করেছেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী শারমিন চৌধুরী। তিনি বলেন, সম্রাটের আর কোনো নেশা নেই জুয়া খেলা ছাড়া। ক্যাসিনো থেকে টাকা আয় করে সংগঠন চালাতেন সম্রাট। স্ত্রীর দাবি, ‘সম্রাটের সম্পদ বলতে কিছুই নেই। ও যা ইনকাম করে ক্যাসিনো চালিয়ে, সব দলের জন্য খরচ করে। দল পালে। আর যা থাকে তা দিয়ে সিঙ্গাপুরে জুয়া খেলে। আগে যেমন ছিল এখনো তেমন। সম্রাটের কোনো নেশা নেই ফ্ল্যাট, বাড়ি, গাড়ির প্রতি। ওর একমাত্র নেশা জুয়া খেলা।’ গতকাল দুপুরে সম্রাটের মহাখালীর বাসায় অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় সম্রাটের দ্বিতীয় স্ত্রী শারমিন সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, “সম্রাট শুরু থেকেই ‘সম্রাট’। ও শুধু নামে সম্রাট এমন নয়, কাজেও সম্রাট। আর যে সহসভাপতি বা অন্য কেউ আছে, ওদের মতো না ও। আগে থেকেই ও চলাফেরা খুব ভালোভাবে করত।” তিনি বলেন, ‘দুই বছর ধরে সম্রাটের সঙ্গে তার যোগাযোগ নেই। মহাখালীর বাসায় গত দুই বছরের মধ্যে সম্রাট আসেনি। এ ছাড়া ক্যাসিনোর অর্থ পরিবারকেও দিত না সম্রাট।’ যোগাযোগ না থাকলে ক্যাসিনোর বিষয় কীভাবে জানেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এটা বোঝাই যায়। জনপ্রিয়তা দেখলে বোঝা যায়। আর এ রকম জনপ্রিয়তা কোন নেতার আছে বলুন? আর কোনো নেতার এমন জনপ্রিয়তা নেই।’ যোগাযোগ না থাকার কারণ সম্পর্কে শারমিন বলেন, ‘আমার সঙ্গে ওর একটু মিলত কম। ও ছেলেপুলে নিয়েই থাকতে বেশি পছন্দ করত। আর ও চাইত না আমি কোনো ক্যামেরার সামনে আসি। ও চাইত আমি ফেস না হই। আর আমি শুরু থেকে নামাজটা পড়তে পছন্দ করতাম। বাসায় থাকতে পছন্দ করতাম। ও চাইত আমি এভাবেই চলি।’ আগে তাকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে গেলেও দুই বছর ধরে সম্রাট তাকে সঙ্গে নেন না বলে জানান শারমিন চৌধুরী। বলেন, ‘দুই বছর ধরে আমাকে সিঙ্গাপুরে নেয় না। ওখানে বোধহয় একটা চায়না প্লাস মালয়েশিয়ান মিক্সড বংশোদ্ভূত মেয়ের সঙ্গে ওর সম্পর্ক হয়েছে। সে আমারও বন্ধু। কিন্তু ওরা আস্তে আস্তে ঘনিষ্ঠ হয়। এখন ও গেলে তার সঙ্গেই সময় কাটায়।’ চলমান অভিযানের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান সম্রাটের এই স্ত্রী। বলেন, ‘আমাদের দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে এই অভিযানের জন্য ব্যক্তিগতভাবে অনেক অনেক ধন্যবাদ জানাই। আমি এখন প্রধানমন্ত্রীর ভক্ত হয়েছি।’ সম্রাটের আর কয়টি বাড়ি আছে- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ঢাকা শহরে আমার জানামতে শান্তিনগরের বাসা, এই বাসা (মহাখালী) আর ডোম-ইনো কোম্পানিতে একটি ফ্ল্যাট বুকিং দেওয়া আছে। শান্তিনগরে যে তার অফিস, সেটা তার নিজস্ব অফিস।’ সম্রাট মহাখালী যান না উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘ও এখানে আসে না। ওপেন হার্ট সার্জারির রোগী সে। সিঁড়ি ভাঙা নিষেধ। দেখা করতে হলে আমি কাকরাইলে যেতাম। অভিযানের পর আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে নাই ও। সব সময় সম্রাট ভাবত আমি বোকা, আমি সব বলে দেব। আমাকে কিছুই বলেনি।’ শারমিনের দাবি, ‘সম্রাট চাইত না অবৈধ টাকা সংসারে খরচ করতে। সে চাইত না তার পরিবারের লোকজন অবৈধ টাকায় চলুক। সে জন্য সেসব টাকা ও দলের পেছনেই খরচ করত।’