ঢাকার মাঠে আবার আর্জেন্টিনা

Published: বুধবার, অক্টোবর ৯, ২০১৯ ৮:৫১ পূর্বাহ্ণ   |   Modified: বুধবার, অক্টোবর ৯, ২০১৯ ৮:৫২ পূর্বাহ্ণ
 

ডিএল টিভি ডট কম

ফুটবলের বরপুত্র লিওনেল মেসির সঙ্গে বাংলাদেশের দর্শকদের সম্পর্কটা বেশ পুরনো। আট বছর আগে ঢাকার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামের সবুজ ঘাস মাড়িয়ে গিয়েছিলেন এই আর্জেন্টাইন তারকা।

পাঁচবারের ফিফা ব্যালন ডি’অরজয়ী এই মহাতারকাকে আবারও ঢাকার মাঠে খেলতে দেখা যেতে পারে। ভেন্যু প্রস্তুত ও শতভাগ নিরাপত্তার সবুজ সংকেত পেলেই আর্জেন্টিনা দলকে বাংলাদেশে আনবে সাউথ কোস্ট ফুটবল লিমিটেড নামে একটি প্রতিষ্ঠান। ইতিমধ্যে এ প্রতিষ্ঠানের কর্ণধাররা যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপির সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন।

প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ঢাকায় প্রীতি ম্যাচ খেলবেন মেসি, সের্গিও আগুয়েরোরা। ১৮ নভেম্বর বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে হতে পারে এই ম্যাচ। এ সংক্রান্ত একটি খবর নিজেদের অফিশিয়াল টুইটার পেজে প্রকাশ করেছে প্যারাগুয়ে ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন (এপিএফ)। ফিফা উইন্ডোতে ১৫ নভেম্বর ভেনেজুয়েলার সঙ্গে একই মাঠে প্যারাগুয়ের খেলার কথাও বলা হয়েছে।

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি যুগান্তরকে জানিয়েছেন, ‘সাউথ কোস্ট ফুটবল লিমিটেড ঢাকায় এই দুটি ম্যাচ আয়োজনের জন্য আমাদের কাছে অনুমতি চেয়েছে।

সেই সঙ্গে নিরাপত্তার নিশ্চয়তা চাওয়া হয়েছে চিঠিতে। আমরা দুটো নিশ্চয়তাই দিয়েছি তাদের। সেই সঙ্গে শর্ত দেয়া হয়েছে আর্জেন্টিনা দলে মেসিকে শুধু থাকলেই হবে না, খেলতেও হবে।

কেননা মেসি ছাড়া আর্জেন্টিনা দল পূর্ণাঙ্গ নয়।’ সাউথ কোস্ট ফুটবল লিমিটেডের এক দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, ‘১৫ নভেম্বর প্যারাগুয়ের সঙ্গে ভেনেজুয়েলার এবং ১৮ নভেম্বর আর্জেন্টিনার সঙ্গে প্যারাগুয়ের দুটি ফিফা প্রীতি ম্যাচ আয়োজনের ব্যাপারে আমরা অনেকটা পথ এগিয়েছি। এই ম্যাচের সঙ্গে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়কে সম্পৃক্ত করা হয়েছে। আমাদের প্রয়োজন আন্তর্জাতিকমানের ভেন্যু ও নিরাপত্তা।

এ ব্যাপারে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের আলোচনা চলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে বাংলাদেশে আসবেন মেসিরা।’ তিনি বলেন, ‘মেসিদের আনার ব্যাপারে আর্থিক বিষয়াদি নিয়ে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) কোনো ভূমিকা থাকছে না। যাবতীয় খরচ আমরাই মেটাব।’

২০১১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আর্জেন্টিনা-নাইজেরিয়া প্রীতি ম্যাচ আয়োজনে খরচ হয়েছিল ৩০ কোটি টাকার বেশি। অভিযোগ রয়েছে, মেসিদের পেছনে সেই সময় এত বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ হয়নি। অদৃশ্যখাতে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল কয়েক কোটি টাকা।

এই ম্যাচের ব্যাপারে আর্জেন্টিনা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন থেকে এখনও কিছু জানা যায়নি। যদিও আর্জেন্টিনার সংবাদপত্র মুন্দো আলবিসেলেস্তে এই প্রীতি ম্যাচে লিওনেল মেসির খেলার সম্ভাবনার কথা জানিয়ে বলা হয়েছে, চলতি মাসে বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের মাঠ সিগনাল ইদুনা পার্কে স্বাগতিক জার্মানি এবং স্পেনের এলচেতে ইকুয়েডরের বিপক্ষে খেলবে আর্জেন্টিনা। এ দুটি ম্যাচ খেলে এশিয়া সফরে আসবেন মেসিরা।

১৫ নভেম্বর সৌদি আরবে ব্রাজিলের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা। এই ম্যাচের মধ্যদিয়ে জাতীয় দলে ফিরবেন তিন মাস নিষিদ্ধ হওয়া লিওনেল মেসি। সৌদি আরব থেকে সরাসরি ঢাকায় আসবে আর্জেন্টিনা ফুটবল দল। অন্যদিকে প্যারাগুয়ে ফুটবল ফেডারেশনের অফিশিয়াল টুইটার-পোস্টে বলা হয়, নভেম্বরে ‘আলবিরোজ্জা’দের (প্যারাগুয়ে ফুটবল দলের নাম) প্রীতি ম্যাচ।

বাংলাদেশে ভেনেজুয়েলা ও আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে প্যারাগুয়ে।’ টুইটারে পোস্ট করা সূচি অনুযায়ী, ঢাকায় আগামী ১৫ নভেম্বর প্রথম প্রীতি ম্যাচে ভেনেজুয়েলার মুখোমুখি হবে প্যারাগুয়ে। এরপর ১৮ নভেম্বর আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে তারা।

২০১১ সালে বাংলাদেশের ফুটবলে নতুন দ্বার খুলে দিয়েছিল নাইজেরিয়া ও আর্জেন্টিনা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে ৬ সেপ্টেম্বর ফিফা প্রীতি ম্যাচ খেলেছিল এ দু’দল। দেশের ইতিহাসে সাড়া জাগানো মেসির নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত ওই ম্যাচে আর্জেন্টিনা ৩-১ গোলে হারিয়েছিল আফ্রিকার দেশটিকে।