আফ্রিদির শূন্যের রেকর্ড সব এখন আকমলের

Published: বুধবার, অক্টোবর ৯, ২০১৯ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ   |   Modified: বুধবার, অক্টোবর ৯, ২০১৯ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ
 

ডিএল টিভি ডট কম

বহুদিন পর দলে ফিরেছেন আহমেদ শেহজাদ। দুই ম্যাচেই ব্যর্থ হয়েছেন এই ওপেনার। তবু চাইলে সান্ত্বনা খুঁজে নিতে পারেন শেহজাদ, তাঁর প্রত্যাবর্তন যে উমর আকমলের চেয়ে বহুগুণ ভালো হয়েছে। বিশ্বকাপ দলে উপেক্ষিত থাকা আকমল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজে নতুন করে সুযোগ পেয়েছেন। প্রথম দুই ম্যাচে এখন পর্যন্ত তাঁর সংগ্রহ। দুই ম্যাচেই শুধু শূন্য পেয়েই সন্তুষ্ট হননি, সেটাকে রাঙিয়ে নিয়েছেন সোনালি রঙে। টানা দুই ম্যাচে গোল্ডেন ডাক পেয়েছেন আকমল।

কাল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাওয়া নতুন এ শূন্য দিয়ে এক সঙ্গে দুটি কাজ করেছেন আকমল। এক, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে শূন্যের রেকর্ডে তিলকরত্নে দিলশানের পাশে বসেছেন। দুই, আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সবচেয়ে বেশি গোল্ডেন ডাকের রেকর্ডও নিজের নামের পাশে লিখিয়ে নিয়েছেন। এত দিন এককভাবে সেখানে রাজত্ব করছিলেন তাঁরই স্বদেশি শহীদ আফ্রিদি।

ম্যাচের যে কোনো পরিস্থিতিতে খেয়ালি শট খেলা আর শূন্য পাওয়ার জন্য বিখ্যাত ছিলেন আফ্রিদি। এক সপ্তাহ আগেও আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে পাকিস্তানের পক্ষে সবচেয়ে বেশি শূন্য ছিল তাঁর। কিন্তু টানা দুই ম্যাচে আফ্রিদিকে শুধু টপকেই যাননি উমর আকমল, দিলশানের রেকর্ডেও ভাগ বসিয়ে ফেলেছেন। অবশ্য দিলশান বা আফ্রিদির চেয়ে একদিক থেকে অনেক এগিয়ে উমর। ৭৮ ম্যাচে আটবার শূন্য রানে আউট হয়েছিলেন আফ্রিদি। ৬৭ ইনিংসে দশবার ডাক পেয়েছেন দিলশান। সেখানে উমরের ১০ শূন্য ৬৫ ম্যাচেই।

আফ্রিদি এর মাঝেও অনন্য হয়েছিলেন। তাঁর আট শূন্যের মাঝে ছয়টিই ছিল প্রথম বলে, অর্থাৎ গোল্ডেন ডাক। দিলশান শূন্যে এগিয়ে থাকলেও ‘সোনালি শূন্যে’ পিছিয়ে ছিলেন। মোট পাঁচবার গোল্ডেন ডাক পেয়েছেন শ্রীলঙ্কান ওপেনার। অবসর নেওয়ার আগে আফ্রিদির রেকর্ডকে হুমকির মুখে রেখেছিলেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি মুর্তজা। ক্যারিয়ারের ছয়টি শূন্যের পাঁচটিতেই ফিরেছেন প্রথম বলে।

এ সিরিজের আগে চারটি গোল্ডেন ডাক নিয়ে নেপালের প্রদীপ আইরী, ইংল্যান্ডের লুক রাইট ও বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানের সঙ্গী ছিলেন উমর আকমল। দুই ম্যাচেই সবাইকে ছাড়িয়ে আফ্রিদির কাছে চলে এসেছেন। যে ফর্মে আছেন ৯ অক্টোবর সিরিজের শেষ ম্যাচে সুযোগ পেলে সব রেকর্ডই নিজের করে নিতেই পারেন উমর আকমল।